Home কাভার গার্ল মিম ও সাপলুডু

মিম ও সাপলুডু

273
0
SHARE

নানামাত্রিক কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন মডেল ও অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা মিম। সবশেষ কলকাতায় তার ‘থাই কারি’ ছবিটি মুক্তি পেয়েছে। বাংলাদেশে মুক্তি পেয়েছে ‘নীল দরজা’ নামের একটি ওয়েব সিরিজ। সেটি বেশ প্রশংসিত হচ্ছে দর্শক মহলে। মিম ভক্তদের জন্যে আরো একটি সুখবর হচ্ছে ২৭ সেপ্টেম্বর মুক্তি পাচ্ছে মিম অভিনীত ‘সাপলুডু’ ছবিটি। এর আগে ছবিটির ট্রেলার ও পোস্টার অবমুক্ত করা হয়। ৩১ আগস্ট সন্ধ্যা ছয়টায় তেজগাঁওস্থ বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়া স্টুডিওতে একটি সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে ছবিটির গান মুক্তি দেওয়া হয়। এদিন উপস্থিত ছিলেন ছবির অভিনয়শিল্পী, কলাকুশলীসহ অন্যরা। বিস্তারিত লিখেছেন শেখ সেলিম…

বাংলা চলচ্চিত্র এখন ক্রান্তিকাল সময় পার করছে। দিন দিন কমে আসছে ছবি নির্মাণ। মাঝে মাঝে কিছু ছবি নির্মাণ হলেও, তার বেশিরভাগ ছবিই হচ্ছে নি¤œমানের। আবার কিছু ছবি হচ্ছে বিগ বাজেটের। কিন্তু তার সংখ্যা খুবই নিতান্ত। অথচ ভালো ছবি হলে এখনও দর্শক হলমুখী হয়। বাংলা সিনেমার উন্নতির লক্ষ্যে অনেকেই এগিয়ে আসছেন। এমনই একটি প্রতিষ্ঠান বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়া। আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর প্রতিষ্ঠানটি তাদের তৃতীয় চলচ্চিত্র মুক্তি দিতে যাচ্ছে। গোলাম সোহরাব দোদুল পরিচালিত ছবির নাম ‘সাপলুডু’। ছবিতে অভিনয় করেছেন আরেফিন শুভ, বিদ্যা সিনহা মিম, তারিক আনাম খান, জাহিদ হাসান, সালাহউদ্দিন লাভলু, শতাব্দী ওয়াদুদ, রুনা খান, সুষমা সরকারসহ আরো অনেকে। ছবিটি প্রযোজনা করেছে বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়া। ছবিতে চারটি গান রয়েছে। গানে কণ্ঠ দিয়েছেন কনা, তানভীর আলম সবুজ, বাপ্পা মজুমদার, আঁখি আলমগীর, হৃদয় খান, পড়শি ও ইমরান।

 

সাপলুডু ছবি নিয়ে যা বললেন তারা

তারিক আনাম খান, অভিনেতা

সিনেমার এই দুর্দিনে আরটিভি ও বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়া দায়িত্ববোধ থেকে এখানে কাজ করছে। আমার ধারণা, ভালো সিনেমার প্রতি তাদের ভালোবাসা রয়েছে। সিনেমাকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য তারা এই ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে। শুধু এই প্রতিষ্ঠানই নয়, অন্যান্যা প্রতিষ্ঠানও আশা করি এগিয়ে আসবে। দর্শক ছবি দেখছেন না, এ-রকম অনেক অভিযোগ আমরা পাচ্ছি, কিন্তু আমরা এটাও দেখছি কিছু ছবির জন্য দর্শক ভিড় জমাচ্ছেন, টিকিটও পাচ্ছেন না। তার মানে সিনেমায় দর্শক নেই এই কথা একদম ভুল। সিনেমা হল বন্ধ হয়ে যাচ্ছে এটা বলা হচ্ছে। বন্ধ হওয়ার পরেও সিনেমায় দর্শক আছেন, তারা সিনেমা দেখছেন। দর্শক সব সময় ভালো সিনেমা দেখতে চান।

আমাদের এখন যেটা করা উচিত, সেটা হচ্ছে মানুষের জীবনের গল্প নিয়ে কাজ করতে হবে। সবার প্রতি সম্মান রেখেই বলছি আমরা এখন যে গল্পগুলো করছি, অনেক ক্ষেত্রেই মনে হচ্ছে তামিল সিনেমার কপি করা, যে ধরেনর মাফিয়া অন্যান্য চরিত্রগুলো দেখাই সেটা আদৌ আমাদের সংস্কৃতির সঙ্গে যায় কি না তা ভেবে দেখা দরকার। আমাদের সেই ধরনের গল্প নিয়ে কাজ করা উচিত, যে গল্পগুলো আমাদের হৃদয়কে স্পর্শ করে যায়। আমরা অভিনয়শিল্পীরাও দায়সারা কাজের মধ্যে চলে গেছি, আমাদেরও অনেক দায়িত্ব রয়েছে, চরিত্রকে চ্যালেঞ্জ করি না, সিচুয়েশনকে চ্যালেঞ্জ করি না। সিনেমার সঙ্গে বাণিজ্য জড়িয়ে আছে এটাকে অস্বীকার করলে চলবে না, সেখানে প্রচুর টাকার লগ্নি হয়। সিনেমাকে বাঁচাতে সবার একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

আমাদের এখন সময় এসেছে, সবাই মিলে দেশের চলচ্চিত্র শিল্পের জন্য আগামী দিনে একটি অসাধারণ জায়গা তৈরি করার। আমার দৃঢ় বিশ^াস, সবাই মিলে চেষ্টা করলে দেশের সিনেমা একদিন নিশ্চিতভাবে অস্কারজয়ী হবে। পরিশেষে ‘সাপলুড’ুর সাফল্য কামনা করি।

 

আরেফিন শুভ, অভিনেতা

দীর্ঘদিন একসঙ্গে থেকে কাজ করলে একটি পরিবার তৈরি হয়ে যায়, সাপলুডু ছবিতে আমরা একটি পরিবারের মত হয়ে কাজ করেছি। যতদিন কাজ করেছি, এক মিনিটের জন্যও মনে হয়নি আমরা দূরের কেউ, ছবির শুটিং শেষ, সবাইকে কতটা মিস করছি, যেটা ছবির কাজের পরে উপলব্ধি করছি। ইউনিটের সবাইকে মিস করছি। ছবি কেমন যাবে এটা কেউ বলতে পারে না। শুধু এইটুকুই বলবো আমরা চেষ্টা করেছি যতটুকু সম্ভব দেওয়া যায়। বাকিটা ছবি মুক্তির পর বোঝা যাবে দর্শক কীভাবে নেন। কৃতজ্ঞতা প্রকাশের তালিকা বানলে শেষ হবে না। আশিক ভাই, দোদুল ভাই লাভলু ভাইসহ পুরো টিমের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। সাপলুডু একটা অন্য ধাঁচের গল্প। আশা করি সবারই ভালো লাগবে। ‘সাপলুডু’র মতো যেন অনেক ছবি হয়।

 

সৈয়দ আশিক রহমান

প্রধান র্নিবাহী কর্মকর্তা, আরটিভি

সাপলুডু ছবিটা কেন আরটিভি প্রযোজনা করার সিদ্ধান্ত নিল, কারণ দোদুল যখন আমাকে গল্পটা শোনালো, আমার কাছে মনে হলো, আমি গল্পটা দেখতে পাচ্ছি। সিনেমার জন্য গল্পটা খুব জরুরি। গল্প না থাকলে সিনেমা বানিয়ে কোনো লাভ হয় না। আমার কাছে মনে হলো এই চলচ্চিত্রটি দর্শকদের কিছু দিতে পারবে। দর্শক হলমুখী হবে। সেই চিন্তা থেকেই কাজটি করা। ছবিটা নিয়ে আমিও খুব আশাবাদী। খুব শিগ্গিরই ছবিটি সেন্সরে জমা দেব এবং ২৭ সেপ্টেম্বরে ছবিটি রিলিজ দেওয়ার জন্য সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ছবিটি শুধু দেশেই নয়, দেশে এবং একইসঙ্গে আমেরিকা ও নর্থ আমেরিকায় মুক্তি পাবে। আরো কয়েকটি দেশে কথা চলছে, সব ঠিক থাকলে একাধিক দেশে ছবিটি মুক্তি দিতে পারবো। এর আগে আরটিভি আরো দুটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছে। ছবি দুটি করে আমরা যথেষ্ট সম্মান পেয়েছি। দর্শকের কথা মাথায় রেখেই আমাদের প্রতিটি চলচ্চিত্র নির্মাণ হচ্ছে। ছেলেবেলায় আমরা পরিবারের সঙ্গে হলে গিয়ে ছবি দেখতাম, সেটা আমাদের দেশ থেকে একপ্রকার হারিয়েই গেছে। প্রাচ্য কিন্তু এটা ধরে রেখেছে। এখনো ইউকেন্ডে তারা পরিকল্পনা করেÑ কোন থিয়েটারে যাবে, কোন সিনেমা হলে যাবে। তারা কিন্তু ঠিকই সেই জায়গাটা ধরে রেখেছে। আরটিভি চেষ্টা করছে সেই জায়গাটাকে ফিরিয়ে আনতে। বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য অত্যন্ত শক্তিশালী। গর্ব করার মতো। প্রাচ্য আমাদের হিংসে করত। বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে সেই চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। অনেক তরুণ আজ মাদকাসক্ত হচ্ছে, অপরাধের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছে, কেন ? তারা সঠিক বিনোদন পাচ্ছে না, এখানে আকৃষ্ট হচ্ছে না। সমাজ পরিবর্তনের হাতিয়ার হচ্ছে বিনোদন, বন্ধুরা মিলে পরিকল্পনা করবে, সিনেমা হলে গিয়ে ছবি দেখবে, সেই জায়গাটা আবার ফিরিয়ে আনতে হবে। আর এজন্য দরকার ভালো গল্প যা তরুণদেরও হলমুখী করবে। ‘আমাদের জন্মভ‚মি’ ও ‘যদি একদিন’ চলচ্চিত্র দুটি মুক্তির পর ভালো রেসপন্স পেয়েছি। কারণ গল্প ভালো ছিল। জন্মভ‚মি এখনো বিভিন্ন দেশে প্রদর্শন হচ্ছে। আশা করি এই ছবিটি মুক্তি পাওয়ার পর আবার দর্শক নতুন করে চিন্তা করবে। এই ছবিটি দেশ ও বিদেশে নতুন করে জায়গা তৈরি করতে পারবে বলে আমার বিশ^াস।

বিদ্যা সিনহা মিম

ছবিটা নিয়ে আমি খুবই এক্সসাইটেড। সাধারণত কোনো ছবিতে কাজ করতে গেলে ওয়ার্কশপ হয় না। কিন্তু এই ছবিতে কাজ করার পূর্বে আমরা ওয়ার্কশপ করেছি। সবাই অনেক পরিশ্রম করেছেন, আমি নিজেও সারাক্ষণ চিন্তা করতাম, আমার চরিত্রটি কীভাবে বাস্তবমুখী করা যায়। এর আগেও আমি আর শুভ একসঙ্গে কাজ করেছি। আমাদের রসায়ন বেশ ভালো ছিল, আশা করি ছবিটি সবার ভালো লাগবে। ‘সাপলুডু’ নিয়ে বেশ আশাবাদ ব্যক্ত করে মিম আরো বলেন, ছবিটিতে কাজ করে ভালো লেগেছে। এরমধ্যে ছবির শুটিংও শেষ করেছি। ছবিটি নিয়ে আলাদা একটা পরিকল্পনা রয়েছে। এরইমধ্যে ছবিটির প্রথম লুক প্রকাশের পর সবাই খুব পছন্দ করেছেন। কেমন সাড়া পেলেন ? মিম বলেন, এটি বেশ কিছুদিন আগে প্রকাশ হয়েছে। অল্প সময়ে দর্শকদের খুব আগ্রহ তৈরি করেছে এটি। এ থেকে যে-রকমের সাড়া পাচ্ছি, তাতে ভালো একটি সিনেমা দর্শক পাবেন বলে আমার বিশ্বাস। হ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here