1. amin@bol-online.com : আনন্দভুবন : আনন্দভুবন
  2. tajharul@bol-online.com : আনন্দভুবন : আনন্দভুবন

৮ আগস্ট ২০২০, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭

মোট আক্রান্ত

২৫৫,০৬০

সুস্থ

১৪৬,৬০৬

মৃত্যু

৩,৩৬৫

  • জেলা সমূহের তথ্য
  • ঢাকা ৫২,২৯৮
  • চট্টগ্রাম ১৪,৭৪৬
  • নারায়ণগঞ্জ ৫,৯৮২
  • কুমিল্লা ৫,৬৭৯
  • বগুড়া ৫,০৯৪
  • ফরিদপুর ৪,৮১১
  • খুলনা ৪,৫৫৩
  • সিলেট ৪,৪৭৫
  • গাজীপুর ৪,৩২৭
  • কক্সবাজার ৩,৪৭৩
  • নোয়াখালী ৩,৩৪৬
  • মুন্সিগঞ্জ ৩,১২৬
  • ময়মনসিংহ ২,৮২৮
  • বরিশাল ২,৪৭৯
  • কিশোরগঞ্জ ২,০৯১
  • যশোর ২,০২২
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১,৯৫১
  • দিনাজপুর ১,৯২৯
  • চাঁদপুর ১,৮৭৫
  • কুষ্টিয়া ১,৮৪১
  • গোপালগঞ্জ ১,৭৯৩
  • টাঙ্গাইল ১,৭৯৩
  • রংপুর ১,৭৯২
  • নরসিংদী ১,৭৫৬
  • সুনামগঞ্জ ১,৫৫০
  • সিরাজগঞ্জ ১,৫৩৯
  • লক্ষ্মীপুর ১,৪৭২
  • ফেনী ১,৩৬০
  • রাজবাড়ী ১,৩৫১
  • হবিগঞ্জ ১,২২৬
  • মাদারীপুর ১,২২৪
  • শরীয়তপুর ১,১৩৯
  • রাজশাহী ১,০৮৫
  • পটুয়াখালী ১,০৬৬
  • ঝিনাইদহ ১,০৫২
  • মৌলভীবাজার ১,০৪৬
  • জামালপুর ৯৮২
  • নওগাঁ ৯৬০
  • মানিকগঞ্জ ৯০৬
  • পাবনা ৮৫২
  • নড়াইল ৮৫১
  • জয়পুরহাট ৭৮২
  • সাতক্ষীরা ৭৮০
  • চুয়াডাঙ্গা ৭৫৯
  • পিরোজপুর ৭৩৯
  • গাইবান্ধা ৬৯৮
  • নীলফামারী ৬৮০
  • বরগুনা ৬৫৭
  • রাঙ্গামাটি ৬৫৭
  • নেত্রকোণা ৬৪৭
  • বাগেরহাট ৬৩৭
  • বান্দরবান ৫৮২
  • ভোলা ৫৫৭
  • কুড়িগ্রাম ৫৫৩
  • নাটোর ৫৪৪
  • খাগড়াছড়ি ৫৩২
  • মাগুরা ৫২৫
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৫১৭
  • ঝালকাঠি ৪৯৩
  • ঠাকুরগাঁও ৪৩৭
  • লালমনিরহাট ৪৩৬
  • পঞ্চগড় ৩৬১
  • শেরপুর ৩২৬
  • মেহেরপুর ২১৯
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট

বলিউডের নারী নির্মাতা

পোস্টকারীর নাম
  • বাংলাদেশ সময় সোমবার, ৬ জুলাই, ২০২০
  • ৪৯ বার ভিউ করা হয়েছে

প্রতিটি ইতিহাস তৈরির ক্ষেত্রে পুরুষের সাথে সাথে নারীদের অংশগ্রহণ ও অবদান অনস্বীকার্য। চলচ্চিত্র নির্মাণের ইতিহাসের বেলায়ও তার ব্যতিক্রম নয়। চলচ্চিত্রকে শিল্পে রূপান্তরিত করার ক্ষেত্রে নারীরও রয়েছে শক্তিশালী ভূমিকা। চলচ্চিত্রে নারীর উপস্থিতি দিন দিন বেড়েছে হুহু করে কিন্তু ক্যামেরার  পেছনের নারীদের অংশগ্রহণ বাড়েনি তেমন করে। বলছিলাম নারী চলচ্চিত্রকারদের কথা। নির্মাতা হিসেবে নারীদের অংশগ্রহণ বেড়েছে বিশ^চলচ্চিত্র অঙ্গনে। আমাদের পাশের দেশ ভারতের চলচ্চিত্র অঙ্গনে রয়েছে বেশ মেধাবী কিছু নারী নির্মাতা। যারা তাদের মেধা, অধ্যবসায় আর অসাধারণ প্রতিভা দ্বারা নির্মাণ করেছেন অসাধারণ কিছু সিনেমা। তেমনই কয়েকজন নারী নির্মাতা থাকছেন এবারের বলিউড আয়োজনে…

 

কিরণ রাও

অভিনেতা আমিন খান অভিনীত জনপ্রিয় সিনেমা ‘লগান’-এর মাধ্যমে সহকারী পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ ঘটে কিরণ রাও-এর। এরপর ‘সাথিয়া’, ‘মনসুনওয়েডিং’, ‘স্বদেশ’সহ আরো কিছু সিনেমায় সহ-পরিচালক হিসেবে কাজ করে বেশ প্রশংসিত হয়েছেন তিনি। ২০১১ সালে তার পরিচালনায় মুক্তি পায় ‘ধোবি ঘাট’ সিনেমাটি। এই সিনেমাটি তেমন সফলতা পায়নি কিন্তু পরিচালনায় কিরণ রাও-এর যে দক্ষতা রয়েছে তা বুঝে যায় বলিউড বোদ্ধারা।

কিরণ রাও-এর জন্ম ৭ নভেম্বর ১৯৭৩ সালে বেঙ্গালুরুর এক রাজ পরিবারে। তবে তিনি বেড়ে ওঠেন কলকাতায়। ১৯৯২ সালে তার বাবা কলকাতা ছেড়ে গেলে তিনি মুম্বাইয়ে চলে যান। দিল্লির জামিয়া মিল্লিয়া ইসলামিয়া এজেকে মাস কমিউনিকেশন্সের রিসার্চ সেন্টার থেকে তিনি অর্থনীতিতে ¯œাতকোত্তর সম্পন্ন করেন।

 

নন্দিতা দাস

বলিউডের এককালের নামিদামি অভিনেত্রী নন্দিতা দাস বলিউডে আগে থেকেই বেশ সুপরিচিত মুখ। ভালো কিছু করার উদ্দেশ্যেই তিনি পরিচালনায় নাম লেখান ২০০৮ সালে। ‘ফিরাক’ সিনেমা তার পরিচালিত প্রথম সিনেমা। সিনেমাটি বাণিজ্যিক সফলতা না পেলেও দেশ বিদেশে দারুণ প্রশংসিত হয় তার পরিচালনা। বেশ কিছু পুরস্কারও পায় এ সিনেমাটি। তার আরেকটি সিনেমা ‘মান্টো’ বেশ প্রশংসিত হয়। উর্দু সাহিত্যের জনপ্রিয় কবি সাদাত হোসেন মান্টোর জীবনী নিয়ে নির্মিত হয় সিনেমাটি।

নন্দিতা দাসের জন্ম ৭ নভেম্বর ১৯৬৯ সালে মুম্বাই শহরে। তিনি তার কাজের জন্য ফরাসি সরকার কর্তৃক অদ্রে দেস আর্টস এট দেস লেটারস পুরস্কার অর্জন করেন। তিনিই প্রথম ভারতীয় যিনি শিল্পকলায় অবদানের জন্য আন্তর্জাতিক নারী ফোরামের নিকট থেকে খ্যাতি অর্জন করেন।

 

মীরা নায়ার

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন নির্মাতা মীরা নায়ার পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন ১৯৭৮ সালের ‘জমা স্ট্রিট মসজিদ জার্নাল’-এর মাধ্যমে। পরবর্তীসময়ে ‘সালাম মুম্বাই’ সিনেমাটির জন্য তিনি বেশ খ্যাতি অর্জন করেন। ১৯৮৯ সালে অস্কারে তিনি বিদেশি ভাষার ছবির জন্য মনোনীত হয়েছিলেন। তার পরিচালিত সিনেমার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ‘মনসুন ওয়েডিং’, ‘মিসিসিপি মাসাল্লা’, ‘অ্যামেলিয়া’ ইত্যাদি।

মীরা নায়ার ১৯৫৭ সালে ভারতের ওড়িশায় জন্ম নেন। বর্তমানে তিনি নিউ ইয়র্ক শহরে বাস করছেন। কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির স্কুল অব আর্টসের চলচ্চিত্র বিভাগের একজন অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত তিনি।

 

দীপা মেহতা

 

দীপা মেহতা একজন ইন্দো-কানাডিয়ান পরিচালক। কিন্তু বেশ কিছু সফল হিন্দি সিনেমা তিনি উপহার দিয়েছেন বলিউডকে। ১৯৯১ সালে কানাডিয়ান সিনেমা ‘স্যাম অ্যান্ড মি’-এর মাধ্যমে তিনি পরিচালক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। তার পরিচালিত সিনেমার মধ্যে ‘কামিল্লা’, ‘ফায়ার’, ‘আর্থ’, ‘বলিউড/হলিউড’, ‘ওয়াটার’ উল্লেখযোগ্য সিনেমাগুলো বেশ সফলতা অর্জন করেন। সেইসঙ্গে তার নির্মাণ কৌশল বেশ প্রশংসিত হয়। তবে তার সিনেমা নিয়ে বেশ বিতর্কও রয়েছে। ফায়ার সিনেমাতে শাবানা আজমি ও নন্দিতা দাসের সমকামিতা দেখানো নিয়ে বেশ বিতর্কের মুখে পড়েছিলেন তিনি। তার ওয়াটার সিনেমাটি সেরা বিদেশি ভাষার সিনেমার জন্য অস্কারে মনোনীত হয়েছিল। দীপা মেহতার জন্ম ১৫ সেপ্টেম্বর ১৯৫০ সালে ভারতের অমৃতসর। তিনি চিত্রনাট্যকার ও চলচ্চিত্র প্রযোজকও।

 

অপর্ণা সেন

বাঙালি নারী নির্মাতাদের নাম বলতে গেলে অপর্ণা সেনের নাম বলতে হবে সবার আগে। ভারতীয় আর্টফিল্ম তৈরিতে তার জুড়ি নেই। ‘৩৬ চৌরঙ্গী লেন’ সিনেমাটি তার পরিচালিত প্রথম সিনেমা। প্রথম সিনেমাতেই তিনি বেশ সফলতা অর্জন করেন। ‘পরমা’, ‘পারমিতার একদিন’, ‘দ্য জাপানিজ ওয়াইফ’, ‘ইতি মৃণালিনী’, ‘ঘরে বাইরে’ তার পরিচালিত সফল কিছু সিনেমা। অপর্ণা সেনের জন্ম ১৯৪৫ সালের ২৫ অক্টোবর, কলকাতায়। অপর্ণা সেনের বাবা চলচ্চিত্র সমালোচক এবং চলচ্চিত্র নির্মাতা চিদানন্দ দাশগুপ্ত। তিনি চলচ্চিত্র নির্মাণের আগে একজন সফল অভিনেত্রী ছিলেন। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের উপন্যাস অবলম্বনে সত্যজিৎ রায়ের সিনেমা ‘অরণ্যের দিনরাত্রি’সহ আরো অনেক সিনেমাতে তিনি অভিনেত্রী ছিলেন। তার কন্যা কঙ্কনা সেনও একজন সফল বলিউড অভিনেত্রী। হ

লেখা : ফাতেমা ইয়াসমিন

 

পোস্টটি শেয়ার দিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো আর্টিকেল
বেক্সিমকো মিডিয়া লিমিটেডের পক্ষে, ইকবাল আহমেদ কর্তৃক প্রকাশিত
Theme Customized BY LatestNews