Home দাঁতের যত্ন দাতের যত্ন

দাতের যত্ন

209
0
SHARE

মরা বাঙালিরা খুবই ভোজনরসিক। ছোটো-বড়ো যেকোনো অনুষ্ঠানেই থাকে খাবারের বিশাল সমাহার। আর কয়টা দিন পরেই কোরবানির ঈদ। মাংস ভুনা, মাংসের কাবাব, গ্রিল কত কত রেসিপি ছাপা হচ্ছে আনন্দভুবন জুড়ে। এসব মুখোরোচক খাবারের স্বাদ নেওয়ার জন্য যা একান্ত অপরিহার্য তা হলো মুখ ও দাঁতের সুস্থতা। ঈদ উদ্যাপনের আগে জেনে নিতে হবে আমাদের মুখ ও দাঁত কতটা প্রস্তুত এসব খাদ্য গ্রহণে।
দাঁতে গর্ত, মাঢ়ি ফোলা কিংবা ভাঙা দাঁত সবকিছুই ঝুঁকিপূর্ণ। মাংস হলো আঁশযুক্ত খাবার। এসব আঁশ মাঢ়ি বা দাঁতের ফাঁকে আটকে প্রদাহ বা ব্যথা তৈরি করতে পারে। তাই প্রথমেই যেটি করতে হবে তা হলো দাঁতের স্কেলিং। স্কেলিং করালে কোন দাঁতের কী অবস্থা তা জানা যাবে। তাছাড়া এতদিন ধরে জমে থাকা পাথর বা খাদ্যকণা মাঢ়ি থেকে পরিষ্কার হয়ে যাবে। ফলে মাঢ়ি ব্যথা বা ফুলে যাওয়ার মতো কোনো অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা ঘটবে না। দাঁতে গর্ত বা ভাঙা থাকলে তা ঈদের আগেই ফিলিং করিয়ে নিতে হবে। তা না হলে মাংসের হাড় খাওয়ার সময় অল্প ভাঙা দাঁত আরো বেশি ভেঙে গিয়ে অসহনীয় অবস্থা তৈরি করতে পারে। আবার দাঁতের গর্তে মাংস আটকে তীব্র ব্যথা তৈরি করতে পারে। দাঁতের যন্ত্রণা শুরু হওয়ার আগেই প্রয়োজন তা প্রতিরোধ করা। আর সেজন্য সবার আগে আমাদের সচেতন হতে হবে দাঁত ও মুখের ব্যাপারে।
দাঁত ভাঙা থাকলে তা দ্রæত রুটক্যানেল করে ক্যাপ করে নিতে হবে। আর দাঁতে রুটক্যানেল করা আছে অথচ ঈদরে বাজেটের কারণে ক্যাপটি করাতে চাচ্ছেন না। কিন্তু ভেবে দেখেছেন কি, ঈদের আনন্দের সময় কোনো কারণে যদি রুটক্যানেল করা দাঁতটি ক্ষতিগ্রস্ত হয় তা কতটা অসহনীয় হতে পারে। রুটক্যানেল করা দাঁত ক্যাপ ছাড়া খুবই নাজুক থাকে। তাই ঈদের বাজেটের ভাবনা ক্যাপের বাজেট যেন আপনার পকেট থেকে বের হয়ে না যায় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। এছাড়া যাদের দাঁত কিছুদিন আগে ফেলা হয়েছে কিন্তু দাঁত প্রতিস্থাপন করা হয়নি। তারা অতি সত্বর দাঁত প্রতিস্থাপন করিয়ে নেবেন।
সবচেয়ে ঝুঁকিতে থাকে শিশুদের দাঁত। তারা ঈদের আনন্দে এতটাই ব্যস্ত থাকে দাঁত ব্রাশ ঠিকমতো করে না। আর আমরা গরুর দাম-দর নিয়ে ব্যস্ত থাকায় ঈদ উদ্যাপনে শিশুর দাঁতের বাড়তি সতর্কতা একদমই নেওয়া হয় না। যেসব শিশুর দাঁত ভাঙা বা গর্তের কারণে প্রায়ই ব্যথা হয় তাদের ব্যাপারে দ্রæত চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করতে হবে। ঈদের খাওয়া-দাওয়ার কোনো সময় বা সীমা কোনোটাই থাকে না। কিন্তু আমাদের দাঁত এসব খানাপিনায় কতটা সক্ষম তা সম্পর্কে আমরা নিশ্চিত নই। বঞ্চিত হতে আমরা কেউই চাই না।
তাই মনে রাখতে হবে, এই খাওয়া-দাওয়ার পেছনে যে-জিনিসটি সবচেয়ে সাহায্য করে থাকে তা হলো আমাদের দাঁত। অতিরিক্ত খাদ্য গ্রহণে দাঁতের ক্ষয় বা ভাঙা দ্রæত হতে পারে। মুখে ঘা বা আলসার থাকলে তা ঈদের সময়ে একেবারে অসহ্য মনে হবে। মোট কথা, কোরবানি ঈদে দাঁতের ব্যাপারে আমাদের বাড়তি সতর্কতা। ঈদে ঘরমুখী মানুষের বাড়তি চাপ সামলাতে যেমন নেওয়া হয় বাড়তি ব্যবস্থা দেওয়া হয় অতিরিক্ত ট্রেন কিংবা অতিরিক্ত বাস, ঠিক তেমনি ঈদের সময় বাড়তি লাগামহীন খাওয়া-দাওয়ার জন্য আমাদের দাঁত ও মুখের ব্যাপারে একটু বাড়তি সতর্কতা নিতেই হবে। ভুলে গেলে চলবে না, ঈদের বাজেটের সাথে আপনার ও আপনার পরিবারের সুস্থতার বাজেটটিও করে নিতে হবে।

লেখক
ডা. আওরঙ্গজেব আরু
হ সাধারণ সম্পাদক
বাংলাদেশ ডেন্টাল হেলথ রিসার্চ ফাউন্ডেশন
হ চিফ কন্সালটেন্ট
ইলাহী ডেন্টাল কেয়ার
মেরুল বাড্ডা প্রধান সড়ক, ঢাকা।
ফোন : ০১৭১১১১০৬৭৯

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here