Home অল ইন অল কিভাবে বর্ষাকালে পায়ের যত্ন নিবেন

কিভাবে বর্ষাকালে পায়ের যত্ন নিবেন

404
0
SHARE

চলছে বর্ষাকাল। একটু বৃষ্টি নামলেই পথে জল থই থই, কাদাপানির ছড়াছড়ি। কিন্তু ঘরের বাইরে না গিয়ে তো উপায় নেই ! তা ছাড়া সব জায়গায় গাড়িতে করেও যাওয়া যায় না, কোনো কোনো সময় হাঁটাপথে যাওয়াই লাগে। কাদাপানি পা ও নখের জন্য ক্ষতিকর। পায়ের ত্বক নষ্ট ও নখের কোণে ময়লা জমে হতে পারে ফাঙ্গাল ইনফেকশন। তাই বৃষ্টির দিনগুলোয় পায়ের বিশেষ যতœ নেওয়া জরুরি বর্ষার এই স্যাঁতস্যাঁতে সময়ে পা ভিজে যাওয়া রোজকার সমস্যা। তাই পায়ের বিশেষ দেখভাল প্রয়োজন। বর্ষায় শহরের রাস্তায় জমে থাকা পানির সঙ্গে নানারকম রাসায়নিক পদার্থ মিশে যায়। এই পানি পায়ের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। পা দীর্ঘ সময় ভিজে থাকলে, পা ঘেমে গেলে নানারকম সংক্রমণ ঘটতে পারে, দেখা দিতে পারে অ্যাথলিট’স ফুট এবং অন্যান্য নানা চর্মরোগ। তা ছাড়া যাদের রক্তে চিনির সমস্যা রয়েছে, তাদের তো বিশেষভাবে পায়ের যতœ নেওয়া দরকার।

পা পরিষ্কার রাখুন

বাইরে থেকে ঘরে ফিরে প্রথমেই তরল সাবান দিয়ে ভালো করে পা ধুয়ে ফেলুন। নখের কোনা, গোড়ালি, আঙুলের খাঁজ ভালো করে পরিষ্কার করতে হবে। পা ধোয়ার পর তোয়ালে দিয়ে একদম শুকনো করে মুছে নিন।

ময়েশ্চারাইজার লাগান

পায়ের সঠিক যতœ করতে হলে প্রথমেই যে কথাটা মাথায় রাখতে হবে, তা হলো পায়ের বিভিন্ন অংশের জন্য আলাদাভাবে যতœ করা দরকার। গোড়ালির অংশটা সাধারণত বেশি শুকনো হয়, তাই এই অংশে ময়েশ্চারাইজার লাগানোর আগে পিউমিস স্টোন বা স্ক্রাব দিয়ে ঘষে ডেড সেল তুলে ফেলুন। পায়ের আঙুলের খাঁজের অংশগুলো ভালো করে মুছে পাউডার ছড়িয়ে নিন। অ্যান্টি-ফাঙ্গাল পাউডার হলে সবচেয়ে ভালো। এই অংশে ময়েশ্চারাইজার বা স্ক্রাব লাগাবেন না, কারণ নরম অংশে ময়েশ্চারাইজার বা স্ক্রাবের দানা ঢুকে ফাঙ্গাল ইনফেকশন হতে পারে।

 

পায়ের নখের যত্ন

পায়ের নখ বড়ো রাখতে ভালোবাসেন যারা, এই সময়টা একটু সামলে রাখুন। নখ যতটা সম্ভব কেটে রাখুন, তাতে কাদা বা ময়লা জমে থাকতে পারবে না। অনেকরকম সংক্রমণের আশঙ্কা এড়িয়ে চলতে পারবেন, পা পরিষ্কার রাখাও সহজ হবে।

কেমন জুতা

কনভার্স সু, হাই হিল, ক্যানভাস ও কাপড়ের জুতা এ সময় এড়িয়ে চলুন। এসব জুতা ভিজলে সহজে শুকায় না, ফলে দীর্ঘক্ষণ পা ভেজা থাকে। পা খোলা অবস্থায় থাকে এমন জুতা পরুন। কাদা এড়াতে পা ঢাকা থাকে, জল প্রতিরোধক ও সহজে পরিষ্কার করা যায় এমন জুতা পরুন।

 

স্বাস্থ্যসম্মত জুতা

স্বাস্থ্যকর জুতা মানে পরিষ্কার, দুর্গন্ধমুক্ত ও শুকনা জুতা। পায়ের মতোই জুতা সময়মতো পরিষ্কার রাখা জরুরি। এমন জুতা পরুন যা সাবান-পানি দিয়ে পরিষ্কার করলে ক্ষতি নেই। জুতা পরিষ্কার করে ভালোভাবে শুকিয়ে নিতে হবে। কারণ স্যাঁতস্যাঁতে ভেজা জুতা পায়ের ত্বকের জন্য ভালো নয়। অফিসে একজোড়া ¯িøপার রাখুন যাতে ভিজে যাওয়া জুতাটি শুকাতে দিয়ে ¯িøপার পরে নেওয়া যায়। ইনফেকশন মুক্ত থাকতে ভেজা জুতা এড়িয়ে চলুন ও কয়েক জোড়া জুতা মিলিয়ে ব্যবহার করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here