Home কাভার গার্ল কবে সফল হবো আমি ঠিক জানি না -লিজা

কবে সফল হবো আমি ঠিক জানি না -লিজা

150
0
SHARE

ক্লোজআপ ওয়ান ২০০৮ সালের মুকুট জয়ী কণ্ঠশিল্পী সানিয়া সুলতানা লিজা। ডাকনাম লিজা। লিজা ময়মনসিংহের মেয়ে। অসাধারণ গায়কি আর কণ্ঠশৈলীর মোহনীয় আবেশে অল্প সময়েই জায়গা করে নিয়েছেন শ্রোতার হৃদয়ে। লিজার সংগীতজীবনের কাহিনি নিয়ে থাকছে এবারের সারেগারে আয়োজন …

 

২০০৮ সালে প্রচারিত সংগীতবিষয়ক রিয়েলিটি শো ‘ক্লোজআপ ওয়ান তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতায় প্রথম হন। এবিষয়ে তার অনুভূতি কেমন ছিল তা জানতে চাইলে লিজা বলেন, যেকোনো প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হলে যেমন লাগে, তেমনই লেগেছে। তবে বলা যায় এই ক্ষেত্রে তার থেকে একটু ভিন্ন রকম লেগেছে। কারণ, ক্লোজআপ ওয়ান আমাদের বাংলাদেশের সবচেয়ে বড়ো একটি রিয়েলিটি শো, তার জন্য অনুভূতিটা একটু অন্যরকম ছিল। আমি এমনিতে অনেক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছি। সেগুলোতে বিজয়ী হওয়া আর ক্লোজআপ ওয়ানে বিজয়ী হওয়া দুটোর মধ্যে অনেক ভিন্নতা ছিল। ক্লোজআপ ওয়ানের বিজয়ী হওয়ার অনুভূতিটা ঠিক বলে বোঝানো যাবে না।

লিজার ধ্যান-ধারণা সবই গান জুড়ে। ভাবনায়-কল্পনায় আর ব্যস্ততায়ও সবসময়ে গানের ভুবনে ভেসে বেড়াতে ভালোবাসেন। শুদ্ধ সংগীত সাধনার মাধ্যমে আদর্শ শিল্পী হওয়ার স্বপ্ন দেখেন প্রতিনিয়ত। লিজার প্রথম একক অ্যালবাম মুক্তি পায় ২০১২ সালে। অ্যালবামটি ছিল তৌসিফ ফিচারিং লিজা পার্ট-১ এবং দ্বিতীয় অ্যালবামটি ২০১৫ সালে মুক্তি পায়। অ্যালবামটি ছিল পাগলি সুরাইয়া। ২০১২ সাল এবং ২০১৫ সালের মধ্যে তার কোনো অ্যালবাম প্রকাশ হয়নি। এছাড়াও প্রায় ৫০টি সিনেমাতে প্লেব্যাক করেছেন। মিশ্র অ্যালবাম বের হয়েছে ৫০টিরও বেশি। লিজার গাওয়া ক্লোজআপ ওয়ানে ‘ভুল করে যদি কখনো’ এই গানের মাধ্যমে তিনি জনপ্রিয়তা লাভ করেন। এই গানের মাধ্যমে লিজা শ্রোতার মনে জায়গা করে নিয়েছেন।

মঞ্চে গান গাওয়া সম্পর্কে তিনি বলেন, মঞ্চে গান করতে অনেক ভালো লাগে। তখন সরাসরি দর্শকের যে সাড়া পাই বা যে উত্তেজনা দেখি, আমার প্রাণ ছুঁয়ে যায়। একটা অন্যরকম অনুভূতি কাজ করে তখন, যা আমি বলে বোঝাতে পারবো না।

সংগীতজীবনের বিশেষ স্মৃতি সম্পর্কে লিজা বলেন, আমার জীবনে সবচেয়ে বড়ো স্মৃতি হলো, ক্লোজআপ ওয়ানে বিজয়ী হওয়া। বিদেশে বা দেশের বাইরে গান গাওয়া সম্পর্কে লিজা বলেন, অনেক দেশে গান করেছি, নাম বলে শেষ করা যাবে না। মোটামুটি যে-সব দেশে বাঙালিরা থাকে সে-সব দেশে গান করা হয়েছে। কণ্ঠশিল্পী লিজা বলেন, হুমায়ূন আহমেদের বই পড়তে অনেক ভালো লাগে। লিজা কাজের ফাঁকে ফাঁকে তার বই পড়েন।

সাম্প্রতিক ব্যস্ততা সম্পর্কে জানতে চইলে বলেন, বর্তমানে গান, মিউজিক ভিডিও এবং স্টেজ শো এগুলো নিয়েই বেশি ব্যস্ত। নতুন একটি গান বাজারে যাচ্ছে গানটির শিরোনাম ‘অনেক কিছু’। গানটি প্রকাশ হবে ধ্রæব মিউজিক স্টেশন থেকে। গানটি লিখেছেন রবিউল ইসলাম জীবন, সুর করেছেন কলকাতার আকাশ সেন। স্টেজ শো সম্পর্কে যদি বলি, শোকের মাসে তেমন কোনো স্টেজ শো থাকে না। সামনে অনেকগুলো শো নিয়ে কথা হচ্ছে। আশা করি সেপ্টেম্বরে বেশ কিছু শো করা হবে। এর মধ্যে বিটিভির একটি বড়ো অনুষ্ঠানে লাইভ করেছি। এখন তো বিটিভি ভারতেও দেখা যাচ্ছে, সেই প্রেক্ষাপটে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এটি করা হয়েছিল। তাছাড়া আমার নিজস্ব ‘লিজা’ নামে একটি  ইউটিউব চ্যানেলও আছে। সেটারও বেশ কিছু কাজ চলছে। এর মধ্যে বর্তমানে তিনটি গান সম্পন্ন করা হয়েছে। একটি স্বাধীনতার গান অন্যটি ভাষার গান আরেকটি হচ্ছে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে।

জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী লিজার এত সুন্দর গানের প্রথম হাতেখড়ি গৌরীপুরের ওস্তাদ এম এ হাই-এর কাছে। লিজাকে পরিবার থেকে অনেক সাপোর্ট দেওয়া হয় গানের জন্য। তিনি আরো বলেন, তার আধুনিক গান করতে অনেক ভালো লাগে। ছোটবেলায় গানের পাশাপাশি খেলাধুলায়ও অনেক এগিয়ে ছিলেন। তিনি ব্যাডমিন্টন খেলতে অনেক ভালোবাসেন। ২০০৩ সালে জাতীয় পর্যায়ে মেয়েদের ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেন। সাফল্য সম্পর্কে তিনি বলেন, আমি সফলতা যে পেয়ে গেছি তা বলবো না। আমি এখনো গান শিখছি, গান করে যাচ্ছি। কবে সফল হবো আমি ঠিক জানি না। ভক্তদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আমার ভক্তরা অনেক ভালো। আমাকে অনেক পছন্দ করে, অনেক ভালোবাসে। ভক্তদের কাছে একটাই চাওয়া, আমার জন্য যেন দোয়া করে। তাদের যেটা ইচ্ছা আমি যেন সেটা পূরণ করতে পারি। হ

লেখা : সোহান আহামেদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here