Home কাভার গার্ল আইরিনের ভারত জয়

আইরিনের ভারত জয়

49
0
SHARE

মডেল ও অভিনয়শিল্পী আইরিন সুলতানা, একের পর এক ভালো কাজ করে দর্শকের হৃদয়ের মণিকোঠায় অনেক আগেই জায়গা করে নিয়েছেন। তার প্রতিটি কাজই দর্শকের প্রশংসা পেয়েছে। স¤প্রতি মুক্তি পায় আইরিন অভিনীত ‘পদ্মার প্রেম’ ছবিটি। ‘পদ্মার প্রেম’ ছবিটি এর আগে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে মুক্তি পায়। ছবিটি পরিচালনা করেছেন হারুন-উজ-জামান। নতুন সিনেমা মুক্তি ও অন্যান্য কাজ সম্পর্কে কথা হয় আইরিনের সঙ্গে। বিস্তারিত লিখেছেন শেখ সেলিম…

 

 

মডেল ও অভিনয়শিল্পী আইরিন সুলতানার মিডিয়ায় যাত্রা শুরু হয় ২০০৮ সালে। ওইবছর ‘প্যান্টেনা ইউ গট দ্য লুক’ প্রতিযোগিতায় তিনি সেরা হাসির জন্য পুরস্কার পান। প্রতিযোগিতার পর নাটক, বিজ্ঞাপনচিত্র, র‌্যাম্প শোতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন আইরিন। এরপর দেবাশীষ বিশ্বাস পরিচালিত ‘ভালোবাসা জিন্দাবাদ’ সিনেমার মাধ্যমে ২০১৩ সালে বড়োপর্দায় যাত্রা শুরু হয়। এরপর আর তাকে পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। কাজ করেছেন একের পর এক চলচ্চিত্রে। কাজ করে বেশ প্রশংসাও পেয়েছেন তিনি। মাঝে অবশ্য একাধিক ওয়েবসিরিজেও অভিনয় করেছেন। তবে বড়োপর্দায় কাজ করতেই তিনি সাচ্ছন্দ্যবোধ করেন।

নতুন ছবি ‘পদ্মার প্রেম’ নিয়ে বেশ খোশ মেজাজেই আছেন আইরিন। কারণ, ছবিটির সঙ্গে অন্য কোনো ছবি মুক্তি পায় নি। বাংলাদেশে ছবিটি ১ নভেম্বর মুক্তি পেলেও, এর আগে ছবিটি মু্িক্ত পায় ভারতে। সেখানকার ৫২টি সিনেমা হলে ছবিটি প্রদর্শিত হয়। এখনো নয়টি সিনেমা হলে ছবিটি প্রদর্শিত হচ্ছে। এরমধ্যে আসামের কালিকা [হাবরা] সিনেমা হলে টানা চার সপ্তাহ ধরে ছবিটি প্রদর্শিত হচ্ছে বলে আইরিন জানান। এই প্রসঙ্গে আইরিন বলেন, ‘নতুন ছবি মুক্তি মানেই খুশির ব্যাপার। ছবিটি ১২টি দেশে মুক্তির অনুমতি নেওয়া হয়েছে, সেই সুবাদে ছবিটি প্রথমে ভারতে মুক্তি পায়, যেহেতু ওখানে [ভারত] সিনেমা হল পেয়ে যায় তাই সেখানে ২০ সেপ্টেম্বর ছবিটি মু্িক্ত দেওয়া হয়। বাংলাদেশে মুক্তি দেয়া হয় ১ নভেম্বর। বাংলাদেশে ১৯টি সিনেমা হলে ছবিটি মুক্তি পায়। দ্বিতীয় সপ্তাহে ছবিটি প্রদর্শন বন্ধ রয়েছে। কারণ, দুটি ছবি মু্িক্ত পেয়েছে, তৃতীয় সপ্তাহ থেকে দেশে আরো কয়েকটি সিনেমা হলে ছবিটি প্রদর্শিত হবে। এই মাসের শেষে ভোজপুরিতে মুক্তি পাবে। সেই প্রত্যাশার জায়গা থেকেই বলতে পারি আমাদের দেশের দর্শকরাও ছবিটি উপভোগ করবেন।’

ছবিটির রেসপন্স প্রসঙ্গে আইরিন বলেন, “ভারতে রেসপন্স বেশ ভালো। তার প্রমাণ একই সিনেমা হলে ছবিটি চার সপ্তাহ চলছে, কোনো কোনো হলে তিন সপ্তাহও চলছে। দেশে ১৯ টি সিনেমা হলে ছবিটি প্রদর্শিত হয়, প্রযোজক শাহ আলম ভাই চেয়েছেন, যেখানে বসে দর্শক ছবিটি দেখে সাচ্ছন্দবোধ করবে, সেইসব হলেই সিনেমাটি দিয়েছেন। বাংলাদেশে যারা ছবিটি দেখেছেন প্রশংসা করেছেন। অনেকে ব্যক্তিগতভাবে আমাকে ফোন করে প্রশংসা করেছেন। তাদের মধ্যে শাহীন সুমন ভাই একটি সিকোয়েন্সের প্রশংসা করে বলেন, ‘হাতের চুড়ি ভাঙার দৃশ্যটা কীভাবে করলে, খুব ভালো হয়েছে।’ এই দৃশ্যে হাতের চুড়ি ভাঙতে গিয়ে আমার হাত কেটে গিয়েছিল, কিন্তু আমি খেয়াল করিনি। কারণ, সেই সময়ে আমি চরিত্রেই ঢুকে গিয়েছিলাম। ছবিটি নিয়ে হল মালিকরা বলেছেন সুন্দর একটি গল্প, এটার আরো প্রচারণার দরকার ছিল, তা হলে আরো দর্শক আসতেন ছবিটি দেখতে।”

আইরিন আরো বলেন, “গল্প নির্ভর একটি ছবি ‘পদ্মার প্রেম’।  ছবিতে আমি ‘পদ্মা’র নাম ভ‚মিকায় অভিনয় করেছি। ‘পদ্মা’ খুব চঞ্চল প্রকৃতির মেয়ে। সে তার গ্রামের মানুষদের সব সময় মাতিয়ে রাখে। সবার সঙ্গে খুনসুটি করে, সহযোগিতাও করে। গ্রামের মানুষ তাকে দারুণ ভালোবাসে। আমি বিশ্বাস রাখি, ছবিটি শেষ পর্যন্ত দর্শককে হলে বসিয়ে রাখবে।”

দিন দিন কমছে সিনেমা হলের সংখ্যা, সেইসঙ্গে পাল্লা দিয়ে কমছে সিনেমার সংখ্যা। এই বছর এ পর্যন্ত মাত্র ৩২টি সিনেমা মুক্তি পেয়েছে। বলতে গেলে গত বছরের চেয়ে এবছর অর্ধেক ছবি মু্িক্ত পেয়েছে। এটা কীভাবে দেখেন ? আইরিন বলেন, ‘এটা অনেক বড়ো আলোচনার ব্যাপার। সিনেমা হলের পরিবেশ সুন্দর করা দরকার। যারা নিয়মিত ছবি প্রযোজনা করেন ও ছবির মার্কেট ভালো বোঝেন তাদের এগিয়ে আসা প্রয়োজন। নতুন প্রযোজকেরা তো আসবেনই। প্রযোজক কম বলে সিনেমার সংখ্যা কমে যাচ্ছে। ভালো ছবি ও সিনেমা হলের ভালো পরিবেশ একইসঙ্গে প্রয়োজন। তা হলে সিনেমার লগ্নিকৃত টাকা ফেরত আসবে, অনেক ছবিও তৈরি হবে। একজন প্রযোজক তার টাকা খরচ করে সেটা ফেরত পেলে তিনি আবারও সিনেমা বানাতে আসবেন। ই-টিকিটিং এর ব্যবস্থা করা যেতে পারে।’

ভারতে পদ্মার প্রেম ছবিটি যেহেতু দর্শক দেখছেন, ওখানকার কোনো ছবিতে কাজ করার অফার আসেনি ? আইরিন বলেন, ‘আমার প্রযোজক ও পরিচালক বলছিলেন ওখানকার অনেকেই নাকি আমাকে সার্চ করেছেন, আমার ভারতে যাওয়ার কথা ছিল, কিন্তু পাসপোর্ট সংক্রান্ত জটিলতার কারণে যেতে পারিনি। এই মাসেই ছবিটি ভোজপুরিতে যখন মুক্তি পাবে তখন যাওয়ার ইচ্ছে রয়েছে। ছবিটি ভোজপুরি ভাষায় ডাবিংয়ের কাজ চলছে, ডাবিং শেষ হলেই সেখানে মুক্তি পাবে। এছাড়াও অন্যান্য দেশে মুক্তি দেয়ার জন্য কাজ চলছে। আরো নতুন ছবির ব্যাপরে কথা হচ্ছে অনেকের সঙ্গে, চূড়ান্ত না হলে তো বলা যাচ্ছে না।’

‘পদ্মার প্রেম’ ছবিটি নিয়ে কোনো স্মৃতি যদি থাকে। আইরিন বলেন, ‘মানিকগঞ্জে আমরা যখন শুটিং করতে গিয়েছিলাম। পদ্মা নদীতে ডুব দেওয়ার একটা দৃশ্য ছিল। এই দৃশ্যের শুটিং করতে গিয়ে ভীষণ ভয়  লেগেছিল। ডুব দিয়ে যদি না উঠতে পারি ! যদিও সাঁতার জানি। আর একটা দৃশ্য ছিল অনেক উঁচু থেকে নদীতে লাফ দেওয়ার। এটাও অনেক রিস্কি ছিল। সাদেক বাচ্চু ভাইয়ার সঙ্গে একটা দৃশ্যে অভিনয় করতে গিয়ে কাঁদতে শুরু করেছিলাম। বাবা-মেয়ের এই দৃৃশ্যটা এতটাই ইমোশনাল ছিল। কাঁদতে কোনো গিøসারিনের প্রয়োজন হয়নি।’

দর্শককের উদ্দেশ্য কিছু বলার থাকলে বলুন-  আইরিন বলেন, আমাদের গ্রামীণ প্রেক্ষাপট নিয়ে ৭০ দশকের গল্পে ছবিটি নির্মিত হয়েছে। গ্রাম বাংলার গল্পটি দর্শককে নিরাশ করবে না। সবাইকে হলে গিয়ে ছবিটি দেখার আমন্ত্রণ রইল।’

‘পদ্মার প্রেম’ ছবিটিতে আইরিনের বিপরীতে অভিনয় করেছেন সুমিত সেনগুপ্ত। এছাড়াও অভিনয় করেছেন সাদেক বাচ্চু, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, আলেকজান্ডার বো, মুনমুন প্রমুখ। সত্তর দশকের পদ্মা নদীর পারঘেঁষা একটি গ্রামের মানুষের গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে ছবিটি। ‘পদ্মার প্রেম’-এর কাজ ২০১৮ সালে শুরু হয়। শেষ হয় চলতি বছরের জানুয়ারিতে। এর বেশিরভাগ দৃশ্য ধারণ হয়েছে মানিকগঞ্জে পদ্মাপারে।

আইরিন অভিনীত মুক্তি প্রতীক্ষায় আরও রয়েছে বুলবুল জিলানী পরিচালিত ‘রৌদ্রছায়া’, সাইফ চন্দনের ‘টার্গেট’, শফিকুল ইসলাম সোহেলের ‘ভোলা’ এবং অরণ্য পলাশর ‘গন্তব্য’ প্রভৃতি। হ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here