Home প্রকৃতি প্রকৃতি

প্রকৃতি

753
0
SHARE

হিজল ফুল

বাংলার মুখ আমি দেখিয়াছি, তাই আমি পৃথিবীর রূপ

খুঁজিতে যাই না আর : অন্ধকারে জেগে উঠে ডুমুরের গাছে

চেয়ে দেখি ছাতার মতন বড়ো পাতাটির নিচে বসে আছে

ভোরের দোয়েলপাখিÑ চারিদিকে চেয়ে দেখি পল্লবের স্তূপ

জাম-বট-কাঠালের-হিজলের অশত্থের করে আছে চুপ ;

ফণীমনসার ঝোপে শটিবনে তাহাদের ছায়া পড়িয়াছে ;

মধুকর ডিঙা থেকে না জানি সে কবে চাঁদ চম্পার কাছে

এমনই হিজল-বট-তমালের নীল ছায়া বাংলার অপরূপ রূপ

জীবনানন্দ দাশ

বাংলাদেশের প্রকৃতিতে অনন্য সৌন্দর্যের বিকাশ ঘটায় হিজল ফুল। বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠে ফুলে ফুলে ভরে যায় গাছ। রাত গভীর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নিজের সৌন্দর্য উজাড় করে দেয় হিজল ফুল। সকালে ঝরে যায়। গাছতলা দেখলে মনে হয় ফুলের বিছানা। ফুটন্ত ফুলে দারুণ মিষ্টি গন্ধ। প্রথমে গাছের শাখা-প্রশাখায় সবুজ রঙের অসংখ্য ঝুলন্ত মঞ্জরি দেখা যায়। এর পর গুটিগুটি ফুলকলি। নির্দিষ্ট সময় পর ফুলকলি ও মঞ্জরির রং পরিবর্তন হয়ে গোলাপি ও লাল রং ধারণ করে। চারদিক আলোকিত করে ফোটে ফুল। গাছের সবুজ পাতা ও শাখা-প্রশাখার নিচে লম্বা মঞ্জরিতে গোলাপি লাল রঙের রেশমি কোমল ফুল দেখতে বড়োই মনোরম। ফুল শেষে গাছে ফল হয়। ফলের রং প্রথমে সবুজ ও পরিপক্ব হলে কালচে খয়েরি হয়। ফলে কামরাঙার মতো খাঁজ থাকে। বীজের মাধ্যমে বংশ বিস্তার হয়।

হিজল মাঝারি আকারের চিরহরিৎ গাছ। বাকল ঘনছাই রঙের ও পুরু। ডালপালার বিস্তার চারদিকে। উচ্চতা ১০ থেকে ১৫ মিটার। জলাবদ্ধতা সহ্য করতে পারে এবং বাঁচে দীর্ঘদিন। বাংলাদেশের জলাবদ্ধ এলাকা খাল, বিল, নদী-নালা, হাওড়-বাওড় ও ডোবার ধারে হিজল গাছ চোখে পড়ে। হিজলের কাঠ নরম, সাদা বর্ণের উজ্জ্বল, মসৃণ ও টেকসই। পানিতে নষ্ট হয় না বলে নৌযান তৈরিতে ব্যবহার করা হয়। সস্তা আসবাব তৈরিতেও এর ব্যবহার দেখা যায়। জ্বালানি হিসেবেও হিজল কাঠের ব্যবহার ব্যাপক। এর বাকল থেকে ট্যানিন পাওয়া যায়। হিজলের কচিপাতা প্রথমে লালচে রঙের হলেও দিনে দিনে উজ্জ্বল সবুজ রং ধারণ করে। গাছের শাখা-প্রশাখা বিস্তৃত। পাতার শিরা-উপশিরা স্পষ্ট। পাতা বেশ পুরু। ফুলের মঞ্জরি প্রায় এক থেকে দেড় ফুট লম্বা হয়। অন্যান্য ফুলে লম্বা মঞ্জরি খুব কমই দেখা যায়। এছাড়া উদ্ভিদটির ভেষজ গুরুত্ব রয়েছে।

হিজল কষ্টসহিষ্ণু গাছ। জলাবদ্ধতা সহ্য করতে পারে। তা ছাড়া অযতœ অবহেলায়ও হিজল গাছ টিকে থাকতে সক্ষম। হিজলের আদি নিবাস অস্ট্রেলিয়া হলেও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বিস্তৃতি ব্যাপক। পরিবার ইধৎৎরহমঃড়হরধপবধব. উদ্ভিদ তাত্তি¡ক নাম ইধৎৎরহমঃড়হরধ ধপঁঃধহমঁষধ. আমাদের দেশে নদীর পার, বাঁধের ধার, পুকুর পাড়, খালের পাড়, বিলের ধার ও বিভিন্ন স্থানে হিজলগাছ চোখে পড়ে। হ

লেখা : শ্যামল কায়া

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here