Home কাভার গার্ল নববর্ষে হয়ে উঠুন অনন্য

নববর্ষে হয়ে উঠুন অনন্য

758
0
SHARE

বছর ঘুরে চলে এলো বাঙালির প্রাণের উৎসব বৈশাখ। নিজেকে বৈশাখের রঙে রাঙাতে প্রস্তুত সব বয়সী বাঙালি। নিজেকে ইচ্ছামতো রাঙাতে ক্লান্তি নেই এতটুকু। সারাদিনের ঘোরাফেরায় সাজগোজে থাকা চাই সবার চেয়ে আলাদা। বৈশাখ মানেই গরমের শুরু, তাই গরম সয়েও বৈশাখের সাজে কীভাবে নিজেকে রাখা যায় অনন্য তাই নিয়ে নববর্ষের সাজ পর্ব…

 

পোশাক

পয়লা বৈশাখে সাজটি হতে হবে স্বাভাবিক সময়ের থেকে বর্ণিল। বৈশাখে গরমের প্রকোপ থাকায় পোশাক নির্বাচনে সতর্ক হতে হবে। এক্ষেত্রে সুতির শাড়ি বা সালোয়ার কামিজ বেশি আরামদায়ক।  শাড়ির ক্ষেত্রে তাঁতের শাড়ি, ঢাকাই জামদানি বা টাঙ্গাইলের শাড়ি প্রাধান্য দিতে পারেন।

রং নির্বাচনের ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে সেটা যেন একটু উজ্জ্বল রঙের হয়। সাদা-লাল, সাদা-সবুজ, অথবা সাদার সঙ্গে অন্য যেকোনো রঙের মিশ্রণ হোক না কেন, সেটা অবশ্যই উজ্জ্বল হতে হবে। বৈশাখে শুধু যে সাদা-লালই পরতে হবে এমন কোনো কথা নেই। আপনি আপনার পছন্দমতো যেকোনো রঙের পোশাক পরতে পারেন।

শাড়ির সঙ্গে ব্লাউজের রং এবং ডিজাইনেও আনতে পারেন কিছুটা চমক। এক্ষেত্রে আপনি বিভিন্ন ডিজাইন দিয়ে বøাউজ তৈরি করতে পারেন। ব্লাউজটি হতে হবে উজ্জ্বল রঙের। এটি পছন্দমতো ছোট হাতা, থ্রি-কোয়ার্টার অথবা ফুল হাতা যেভাবে খুশি পরতে পারেন, এটি আপনার রুচি ও স্বাচ্ছ্যন্দের ওপর নির্ভর করবে। ব্লাউজের ক্ষেত্রেও সুতি কাপড় ব্যবহার করা ভালো, এটি গরমে বেশ আরামদায়ক।

 

মেকআপ

গরম আর রোদে মেকআপ নষ্ট হওয়ার ভয় থাকে। বৈশাখি সাজে মেকআপ ঠিক রাখতে বেছে নিতে পারেন হাল্কা বেইজের কিছু। তবে মেকআপ করার আগে অবশ্যই ত্বক ভালো করে পরিষ্কার করে নেবেন। গরমে ত্বক থেকে তেল বের হয় তাই বেছে নিতে পারেন অয়েল ফ্রি বা ওয়াটার প্রæফ মেকআপ।

 

চোখের সাজ

চোখে লাগাতে পারেন হালকা আইশ্যাডো আর মাশকারা। আইলাইনার বা মাশকারা ওয়াটারপ্রæফ কি না দেখে নিন। চোখের চারদিকে ছড়িয়ে পড়া এড়াতে কাজল দেওয়ার পর হাল্কা একটু পাউডার দিয়ে নেবেন। তাতে আর কাজল ছড়ানোর ভয় থাকবে না।

 

ঠোঁটের সাজ

গাঢ় দিতে চাইলে অবশ্যই লাল রঙের লিপস্টিক ব্যবহার করতে হবে। অন্যদিকে হাল্কা রঙের লিপস্টিকও ব্যবহার করতে পারেন। তবে রং যেন অবশ্যই আপনার পোশাকের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়। অপেক্ষাকৃত হাল্কা রঙেই ভালো লাগে বেশি।

 

কপালের সাজ

টিপ ছাড়া কি বৈশাখের সাজ সম্পূর্ণ হয় ? তাই টিপ পরতে ভুলবেন না। কপালে ছোট বা বড়ো  লাল টিপই বেশি মানাবে। অন্য রঙের টিপও ব্যবহার করতে পারেন, সেক্ষেত্রে এখানেও পোশাকের রঙের সঙ্গে মিল রাখার বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে। তবে, এক্ষেত্রে গাঢ় রং অত্যাবশ্যকীয়।

চুলের সাজ

বড়ো চুলের সাজে করতে পারেন খোঁপা বা বেণী। শাড়ি বা সালওয়ার-কামিজ যাই পরুন না কেন, চুলে খোঁপা বা বেণী দুটোই ভালো মানায়। এ ক্ষেত্রে হাতখোঁপা করে চুলের দুপাশে বা পুরোটা জুড়ে গেঁথে নিতে পারেন দেশি ফুলের মালা। মানানসই কাটে মাঝারি বা ছোট চুল ছেড়ে দিলেও ভালো মানায়। উৎসবের দিন সেটাকে আয়রন করে একপাশে রেখে দিতে পারেন। ছোট্ট কোনো ব্যান্ড দিয়েও হাল্কা হাতে একটু অগোছালো করে আটকে নিতে পারেন। তবে তাতেও ফুল থাকা চাই। এ ছাড়া মাথায় দিতে পারেন ফুলের তাজ।

 

অন্যান্য অনুষঙ্গ

গয়নার ক্ষেত্রে বেছে নিতে পারেন মাটির গয়না, কাচের চুড়ি, মেটালিক আদিবাসী ঘরানার গয়না। পা রাঙাতে পারেন আলতায়। এক্ষেত্রে একটু সতর্ক থাকতে হবে যেন পায়ে পানি না লাগে। পানি লাগলে আলতার রং ছড়িয়ে নষ্ট হয়ে যেতে পারে। সারাদিন ঘুরে বেড়ানোর জন্য আরামদায়ক জুতা ব্যবহারের চেষ্টা করুন। শাড়ির সঙ্গে বটুয়া ব্যাগ ব্যবহার করলে দেখতে ভালো লাগবে। এ ছাড়া পাটের তৈরি ব্যাগও ব্যবহার করতে পারেন।

বৈশাখের আনন্দ তো সবার জন্যই। নারীরা যেমন দিন গোণে বৈশাখের রঙে সেজে উঠবে বলে, সমান আবেগ পুরুষদের জন্যও। ঐতিহ্যবাহী এই দিনটিকে ঘিরে বাঙালির আগ্রহের কমতি নেই। সব উৎসবেই সাজ মানে মেয়েরাই সাজবে এমন কোনো কথা নেই। আজকাল পুরুষেরাও অনেক সচেতন। এখন ছেলেরাও নানা উৎসবে নিজেদের সাজগোজের মধ্য দিয়ে নিজেদের তৈরি করে উৎসব উপোযোগী করে।

যদিও সাজগোজের বিষয়টা ছেলেদের সঙ্গে তেমনভাবে জড়িত নয়, যেটুকু সাজার তা ওই পোশাকের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। তাই পোশাকেই যেন বৈশাখের আবহ প্রকাশ পায় সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে। পয়লা বৈশাখে ছেলেরা সাধারণত পাঞ্জাবি, পাজামা, ফতুয়া, কোর্তা, টি-শার্ট, ধুতি, ব্যাপারি শার্ট বা কোর্তা পরতে পারেন। আর এসব পোশাকে লাল-সাদা রঙের প্রাধান্য থাকে। তবে পোশাক নিয়ে ছেলেদের খুব বেশি চিন্তা করার দরকার নেই। ফ্যাশন হাউজগুলো ক্রেতাদের আগ্রহের বিষয়টি বিবেচনা করে বর্ষ বরণের জন্য তৈরি করে আবহাওয়া উপযোগী আরামদায়ক সুতি পোশাক। সেখান থেকে নিজের রুচি অনুযায়ী পোশাক কিনে নিলেই হলো। আর ত্বকের যতœ নেওয়া সবারই উচিত, উৎসবের দিন বের হওয়ার আগে ভালো করে মুখটা ধুয়ে ভালো কোনো সানস্ক্রিন ব্যবহার করে নিতে পারে ছেলেরাও। চুলে আগের দিন শ্যাম্পু করে নিন তাতে ঝলমলে দেখাবে। পাঞ্জাবির সঙ্গে পায়ে নাগরা বা স্যান্ডেল ভালো মানায়। তবে জিন্সের সঙ্গে কেডসও মানিয়ে যায়। অনেক তো জানা হলো, এবার প্রস্তুতি নিন বৈশাখে কীভাবে দেখতে চান নিজেদের। সবাইকে বৈশাখের শুভেচ্ছা। হ

গ্রন্থনা : তৃষা আক্তার . ছবি : জাকির হোসেন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here