Home আকাশলীনা খলচরিত্র আমাকে বেশি টানে – সাঈদ বাবু

খলচরিত্র আমাকে বেশি টানে – সাঈদ বাবু

2266
0
SHARE

ছোটপর্দা এবং বড়োপর্দা দুই মাধ্যমেই অভিনয় করে প্রশংসিত হয়েছেন মডেল এবং অভিনেতা সাঈদ বাবু। নিত্যনতুন চরিত্র নিয়ে হাজির হচ্ছেন দর্শকের সামনে। সাঈদ বাবুর ব্যস্ততা এখন শুধু অভিনয় ঘিরে। আনন্দভুবনের আকাশলীনা আয়োজনে মডেল এবং অভিনেতা সাঈদ বাবুকে নিয়ে লিখেছেন তৃষা আক্তার…

মঞ্চ, বিজ্ঞাপনচিত্র, টিভিনাটক, চলচ্চিত্র প্রতিটি ক্ষেত্রেই সাবলীল অভিনয়ের মাধ্যমে দর্শকের কাছে পরিচিত ও প্রিয় মুখ হয়ে উঠেছেন মডেল এবং অভিনেতা সাঈদ বাবু। বৈচিত্র্যময় চরিত্রে অভিনয় করে তিনি দেখিয়ে চলেছেন অভিনয়ে তার পারদর্শিতা। অভিনয়জগতে সাঈদ বাবুর যাত্রা শুরু হয় মঞ্চনাটকের মাধ্যমে। ১৯৯৫ সালে ভোলার ‘দ্বীপাঞ্চল সাংস্কৃতিক গোষ্ঠী’র মাধ্যমে মঞ্চে তার অভিনয় শুরু। পরবর্তীসময়ে ‘ভোলা থিয়েটারে’ যোগদান করেন। ২০০০ সালে পড়াশোনা সম্পন্ন করতে ঢাকায় আসেন। ২০০৬ সালে তিনি যুক্ত হন ‘সুবচন নাট্যসংসদ’-এ। আফজাল হোসেনের পরিচালনায় চ্যানেল আইতে ফ্যাশন বিষয়ক অনুষ্ঠান ‘রূপকথা’ মাধ্যমে তিনি প্রথম টিভি পর্দায় আসেন। পরবর্তীসময়ে আফজাল হোসেনের নির্দেশনায় কয়েকটি বিজ্ঞাপনচিত্রের মডেল হিসেবে কাজ করেন। অমিতাভ রেজার নির্দেশনায় বাংলালিংক-এর ‘দিনবদল’-এর বিজ্ঞাপনে অভিনয় করে বেশ পরিচিতি পান সাঈদ বাবু। এছাড়া বিবিসির ‘বিশ্বাস’ সিরিজে ‘আবির’ চরিত্রে অভিনয় করেও ছোটপর্দার দর্শকের কাছে প্রিয় হয়ে ওঠেন তিনি। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য নাটকের মধ্যে রয়েছে ‘প্রেম অপ্রেম’, ‘মায়ার খেলা’, ‘আগুন পোকা’, ‘সত্য পাহাড়’, ‘জয়িতা’, ‘মাগো তোমার জন্য’, ‘অসমাপ্ত গল্প’, ‘খেলা খেলা সারাবেলা’, ‘নোয়াশাল’, ‘গুলবাহার’ প্রভৃতি। তার অভিনীত চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে ‘রাবেয়া’, ‘এই তো প্রেম’, ‘অস্তিত্বে আমার দেশ’, ‘কমন জেন্ডার’, ‘পোড়ামন-২’ ইত্যাদি।

২০১৩ সালে ‘খেলা খেলা সারাবেলা’ নাটকে অভিনয়ের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ পার্শ্বঅভিনেতা হিসেবে মেরিল প্রথম আলো সমালোচক পুরস্কার অর্জন করেন।

ক্যারিয়ারের টার্নিং পয়েন্ট কোনটি জানতে চাইলে সাঈদ বাবু বলেন, বাংলালিংক-এর ‘দিনবদলের’ বিজ্ঞাপনচিত্রটি আমার ক্যারিয়ারের উল্লেখযোগ্য একটি কাজ। এই বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে ছোটপর্দায় আমার পরিচিতি বেড়ে যায়। বিবিসি’র ধারাবাহিক নাটক ‘বিশ্বাস’-এ অভিনয় করেও ভালো সাড়া মেলে দর্শকের কাছ থেকে। কিছুদিন আগে মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র ‘পোড়ামন-২’-এ মোকসেদ তালুকদারের চরিত্রে অভিনয় করেও দারুণ সাড়া পাচ্ছি। তাই বলা যায়, এখন পর্যন্ত আমার ক্যারিয়ারে এই তিনটি কাজের মাধ্যমে সবথেকে বেশি সফলতা পেয়েছি।

কোন ধরনের চরিত্রে অভিনয় করতে ভালো লাগে জানতে চাইলে সাঈদ বাবু বলেন, খলচরিত্র আমাকে বেশি টানে। তবে শুধু খলচরিত্রেই অভিনয় করব ব্যাপারটি তেমন নয়, পজেটিভ বা নেগেটিভ যেমন চরিত্রই হোক, সেখানে যদি অভিনয়ের সুযোগ থাকে এবং সেই চরিত্রে কাজ করতে যদি আরামবোধ করি তবে আমি অভিনয় করব।

‘পোড়ামন-২’ চলচ্চিত্রের কারণে মাঝে ছোটপর্দায় কাজ করা হয়নি সাঈদ বাবুর। এখন ছোটপর্দায় খÐ নাটকে অভিনয় শুরু করেছেন। ‘সুবচন নাট্যসংসদ’র সঙ্গে এখনো যুক্ত আছেন। তবে ব্যস্ততার কারণে মঞ্চনাটকে কাজ করা হচ্ছে না তার।

ঈদ-উল ফিতরে মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র ‘পোড়ামন-২’-এ খলচরিত্র মোকসেদ তালুকদারের ভূমিকায় চমৎকার অভিনয় করে প্রশংসায় ভাসছেন সাঈদ বাবু। খলচরিত্রে অভিনয় করে যেমন প্রশংসা পাচ্ছেন, তেমনি চলচ্চিত্রে তার ‘ভাল্লাগছে, খুব ভাল্লাগছে’ সংলাপটিও পেয়েছে জনপ্রিয়তা। মজার এই সংলাপটি সংযোজন করেছিলেন সাঈদ বাবু নিজেই। সাঈদ বাবু বলেন, পরিচালক রায়হান রাফির কাছ থেকে যখন স্ক্রিপ্ট পেলাম, তখন পড়ার পর মনে হলো বিশেষ বিশেষ মুহূর্তে এই সংলাপটি ব্যবহার করলে চরিত্রটি আরো আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে। সেই ভাবনা থেকেই পরিচালককে বললাম এই সংলাপের কথা। তিনিও রাজি হলেন। এখন সিনেমা মুক্তির পর অনেকের কাছ থেকেই এই সংলাপের জন্য প্রশংসা পাচ্ছি। আমাকে দেখলেই সবাই বলে উঠছে ‘ভাল্লাগছে, খুব ভাল্লাগছে’।

অভিনয়ের ব্যস্ততার কারণে অবসর তেমন মেলে না সাঈদ বাবুর। তবে অবসর পেলেই স্ত্রী টুম্পাকে নিয়ে ঘুরতে বের হয়ে যান।

ভবিষ্যৎ ভাবনার কথা জানতে চাইলে সাঈদ বাবু বলেন, আমি পরিপূর্ণভাবে একজন অভিনয়শিল্পী হতে চাই। অভিনয় করতে যেয়ে যা কিছু খুঁত ধরা পড়বে সেগুলো সংশোধন করে নিয়মিত অভিনয় করে যেতে চাই। হ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here